Categories
নিউজ নিবন্ধ

দেশের জলসীমায় ডলফিন

সোয়াচ অব নো গ্রাউন্ড বঙ্গোপসাগরে বাংলাদেশের জলসীমায় সংরক্ষিত এলাকা। সমুদ্রবিজ্ঞানীদের মতে এই সোয়াচ অব নো গ্রাউন্ড একটি সামুদ্রিক অভয়ারণ্য। গবেষকদের মতে পৃথিবীর অন্যতম গভীরতম মেরিন ভ্যালি এখানে। মৎস ও অন্যান্য সামদ্রিক সম্পদে ভরপুর এই নীল জলরাশি বাংলাদেশের একমাত্র জায়গা যেখানে হরহামেশাই তিমির দেখা মেলে। সোয়াচ অব নো গ্রাউন্ডে দেখা যায় ৭ প্রজাতির তিমি, ১১ প্রজাতির হাঙ্গর, ৬ প্রজাতির ডলফিন । সোয়াচ অব নো গ্রাউন্ডের কিছু ছবি আপনাদের জন্য আপলোড করা হল। ছবি গুলো বিভিন্ন সময়ে গবেষকগণ তুলেছেন । আরো তথ্য ছবির ক্যাপশনে।

বিশ্বের সর্বচ্চো সংখ্যক ইরাবতি ডলফিন রয়েছে সুন্দরবনসহ বঙ্গোপসাগর উপকুলে।

সাড়ে ৩ বছর আগে ডলফিন ইরাবতি ছিল বিশ্বের বিলুপ্ত প্রজাতির তালিকায়। এখন বাংলাদেশের জল সীমায় সন্ধান মিলেছে ডলফিন ইরাবতির এক নতুন চারণ ক্ষেত্রের। বিশ্বের সর্বচ্চো সংখ্যক ইরাবতি ডলফিন রয়েছে সুন্দরবনসহ বঙ্গোপসাগর উপকুলে। বিশ্বখ্যাত ম্যানগ্রোভ ফরেষ্ট সুন্দরবনের নদ-নদী, সুন্দরবন উপকূল ও বঙ্গোপসাগরের সোয়াস অব নো গ্রাউন্ডসহ ১২০ কি. মি. পর্যন্ত গভীর সমূদ্রে রয়েছে ৫ হাজার ৪শ’ ইরাবতি ডলফিন।
শুধু ইরাবতি ডলফিনই নয়, এখানে আরো কয়েক প্রজাতির ডলফিন রয়েছে। গত ৩ বছর আগে এই ডলফিন রক্ষায় সুন্দরবনের ৩ টি এলাকার ৩১ দশমিক ৪ কিলোমিটার নদী ও খালকে ডলফিনের জন্য অভয়াশ্রয় ঘোষণা করে বন ও পরিবেশ মন্ত্রণালয়। ডলফিন রক্ষার এই ঘোষণা কয়েক বছর ধরে রয়েছে কাগজে-কলমে। এখনো এই অভয়াশ্রয়ে অবাধে চলছে বিভিন্ন প্রকার জাল দিয়ে মাছ শিকার। মরার উপর খাড়ার ঘা হিসেবে দেখা দিয়েছে বন মন্ত্রণালয়ের অনুমতি ছাড়া এই অভয়াশ্রয়ের বুক চিরে চালু হওয়া অভ্যন্তরীন ও আন্তর্জাতিক নৌ-রুট। এ নতুন নৌ-রুট চালুর ফলে হুমকির মুখে পড়েছে ডলফিনের অস্তিত্ব।

Image may contain: ocean, outdoor and water
ডলফিন


পূর্ব সুন্দরবন বিভাগ সূত্রে জানা যায়, সাড়ে ৩ বছর আগে ওয়ার্ল্ড লাইফ কনজারভেশন সোসাইটি, এনওয়াই ও বাংলাদেশ সিটাসিন ডাইভারসিটি প্রজেক্টের দেশী-বিদেশী প্রাণী বিশেষজ্ঞরা যৌথভাবে সুন্দরবনসহ বঙ্গোপসাগরে ব্যাপক অনুসন্ধান চালিয়ে বিলুপ্ত ইরাবতিসহ ৬ প্রজাতির ডলফিন ও ১ প্রজাতির তিমির সন্ধান পায়। প্রাণী বিশেষজ্ঞদের যৌথ অনুসন্ধান জরিপ রিপোর্ট থেকে জানাগেছে, এই ডলফিন চারণক্ষেত সুন্দরবনের বাংলাদেশ অংশের নদ-নদীসহ বঙ্গোপসাগরের সোয়াস অব নো গ্রাউন্ডে বিশ্বের সর্বোচ্চ সংখ্যক বিলুপ্ত প্রজাতি ইরাবতি ডলফিন রয়েছে ৫ হাজার ৪শ। এছাড়াও এই জল সীমার ১৩ টি স্পটে ৪০টি ইন্দো-প্যাসিফিক হাম্প ব্যাক্ট ডলফিনের দেখা পাওয়া গেছে, উপকূল থেকে ১১ মাইল সুন্দরবনের মধ্যে ১ হাজার ৩৮২ টি ফিনলেস ডলফিন, ১ হাজার ইন্দো-প্যাসিফিক বটল নোস ডলফিন, সুন্দরবন উপকূলের ১৪ টি স্পটে সন্ধান মিলেছে ষ্পিনার ডলফিনের।
তবে ষ্পিনার ডলফিনের সংখ্যা জরিপ রিপোর্টে উল্লেখ করা হয়নি। সুন্দরবন উপকূলের ৮ টি স্পটে সন্ধান মিলেছে ৮শ ষ্পটেড ডলফিনের ও সুন্দরবনসহ উপকূলের ১৩ টি স্পটে ২২৫ টি গংগেজ রিভার ডলফিন দেখতে পাওয়া গেছে।
এছাড়া ব্রাইডস হোয়েলস প্রজাতির ৫০ টি তিমির দেখা মিলেছে। প্রাণী বিশেষজ্ঞদের নতুন এই তিমি চারণক্ষেত্রের সন্ধান লাভের খবর ২০০৯ সালের জুন মাসে ইন্টারনেটে দেয়া হলে গোটা বিশ্বের মিডিয়া গুরুত্ব সহকারে প্রচার করে। তবে এখনো দেশী মিডিয়ায় এই বিষয়টি নিয়ে তেমন প্রচার-প্রচারণা নেই।
প্যানসিডি প্রকল্পে বলা হয়েছে, বঙ্গোপসাগরসহ সুন্দরবনের নদ-নদীর পানি, পানির উষ্ণতা ইরাবতি ডলফিনের বংশ বৃদ্ধির জন্য খুবই সহায়ক। তবে ফারাক্কা বাঁধের কারণে গঙ্গার পানি প্রবাহ এখন সুন্দরবনে কম আসা ও সমূদ্রের পানির উচ্চতা বেড়ে যাওয়ার পাশাপাশি এই এলাকায় চিংড়ির রেনু পোনা আহরণে কারেন্ট জালের অবাধ ব্যবহারের ফলে ইরাবতি ডলফিনের বংশ বৃদ্ধি এখন চরম হুমকির মুখে পড়েছে।

Image may contain: water
An adult humpback dolphin displays its characteristic pink coloration. Credit: Rubaiyat Mowgli Mansur/WCS-Bangladesh.

Image may contain: water and outdoor
ndo-Pacific bottlenose dolphin calf surfacing next to its mother in the Bay of Bengal. Credit: Rubaiyat Mowgli Mansur.

Image may contain: outdoor and water
A group of Dolphin at the Swatch of No-Ground in March. Photo: Isabela Foundation.

Carcass with Gillnet
These boats made 37 trips lasting 8-12 days each over a five month period during which the fishermen recorded four fatal entanglements in gillnets: two Irrawaddy dolphins and two bottlenose dolphins. They also recorded basic information from the dolphin carcasses (e.g., measurements and sex), took photographs, and collected biological samples
Bangladesh fishermen training
the fishermen recorded the geographical locations of 125 dolphin groups. These included five Ganges River dolphin (Platanista gangetica) groups in the Barisal River on the way to the Bay of Bengal, and 71 Irrawaddy (Orcaella brevirostris), 28 Indo-Pacific humpback (Sousa chinensis), 20 Indo-Pacific bottlenose (Tursiops aduncus), and one pantropical spotted dolphin (Stenella attenuata) groups in marine waters. These are the first ever records of cetaceans in these waters during the monsoon season.
বেতনা নদীর চরে আটকা পড়া বিরল প্রজাতির ইরাবতি ডলফিন

Courtesy – Rubaiyat Mansur, defence research forum- defres and https://www.iucn.org/